Loading...
The Financial Express

সাফজয়ী ফুটবলার আঁখির বাবাকে শাসানো ২ পুলিশ প্রত্যাহার

| Updated: September 23, 2022 17:46:29


নারী সাফ ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপ জয়ী দলের সদস্য আঁখি খাতুন নারী সাফ ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপ জয়ী দলের সদস্য আঁখি খাতুন

নারী সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ জয়ী দলের সদস্য আঁখি খাতুনের বাবার সঙ্গে অসদাচরণের অভিযোগে সিরাজগঞ্জে দুই পুলিশ সদস্যকে দায়িত্ব থেকে প্রত্যাহার করে পুলিশ লাইনে সংযুক্ত করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার বিকালে সিরাজগঞ্জ পুলিশ সুপার আরিফুল ইসলাম মন্ডল বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, থানায় নিয়ে যাওয়ার কথা বলে শাসানো ও হুমকির অভিযোগ প্রাথমিকভাবে প্রমাণিত হওয়ায় দুজনকে প্রত্যাহার করে পুলিশ লাইনে সংযুক্ত করা হয়েছে।

পাশাপাশি বিষয়টি তদন্তের জন্য অতিরিক্ত পুলিশ সুপারকে (শাহজাদপুর সার্কেল) দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে বলে জানান পুলিশ সুপার। 

এই দুই পুলিশ সদস্য হলেন শাহজাদপুর থানার এএসআই মামুনুর রশিদ ও কনস্টেবল আবু মুসা। খবর বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের।

বুধবার বিকালে আদালতের একটি নোটিশে স্বাক্ষর নিতে যান এএসআই মামুনুর রশিদ ও কনস্টেবল আবু মুসা। ওই সময় আঁখির বাবা স্বাক্ষর দিতে রাজি না হলে তার সঙ্গে এ দুই পুলিশ সদস্য ‘অসদাচারণ’ করেন বলে অভিযোগ।

পরে বিষয়টি গণমাধ্যমে প্রচার হলে তীব্র সমালোচনার সৃষ্টি হয়।

এ বিষয়ে নারী সাফ চ্যাম্পিয়ন দলের রক্ষণভাগের সদস্য আঁখি বলেন, “সরকারিভাবে আমাকে দেওয়া জমির বিষয়ে একটি পেপার নিয়ে থানা পুলিশ গিয়ে আমার বাবাকে শাসিয়েছে। তারা একটি কাগজে সই করতে বলার পর বাবা নাজি না হলে থানায় নিয়ে যাবে বলেছে।

“আমাকে ফোনে জানানো হয়েছে, আমি বাড়িতে যাওয়ার পর আমাকেও থানায় যেতে হবে।”

আঁখির বাবা আক্তার হোসেন বলেন, “আমি কোনো মামলার বাদী বা আসামি নই। আমি পুলিশকে বলেছি- আপনারা ইউএনও মহোদয় বা ডিসি স্যারের সাথে কথা বলেন। তখন আমার সাথে তারা অসদাচারণ করেছে তারা। আর এক পুলিশ সদস্য আমাকে ধরে নিয়ে যাবে বলেছে।”

আঁখির বড় ভাই নাজমুল ইসলাম বলেন, “বুধবার বিকালে শাহজাদপুর থানা থেকে এএসআই মামুনসহ একটি টিম এসে আমার বাবাকে জানায়- সরকার থেকে আঁখিকে যে জায়গাটা দেওয়া হয়েছে আদালত থেকে সেখানে ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। আপনারা ওই জায়গা ছেড়ে চলে যান। তা না হলে আপনাদের থানায় ধরে নিয়ে যাব।”

শাহজাদপুর থানার ওসি নজরুল ইসলাম বলেন, আদালত থেকে আঁখিদের জমি সংক্রান্ত একটি নোটিশ এসেছিল। সেই নোটিশের কপিটা এএসআই মামুন আঁখির বাবাকে দিতে গিয়েছিল এবং রিসিভ করে একটা সই দিতে বললে সেখানে আঁখির বাবার সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয়।

এদিকে, বৃহস্পতিবার সকালে শাহজাদপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার তরিকুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (শাহজাদপুর সার্কেল) হাসিবুল ইসলাম ও থানার ওসি নজরুল ইসলাম মৃধা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

এ সময় তারা আঁখির পরিবারকে মিষ্টি দিয়ে শুভেচ্ছা জানান এবং উল্লেখিত ঘটনার জন্য দুঃখ প্রকাশ করেন।

এ বিষয়ে শাহজাদপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার তরিকুল ইসলাম বলেন, “সরকারি খাস খতিয়ানভুক্ত আট শতক জমি আঁখির পরিবারকে দলিল করে দেওয়া হয়েছে। তারপরও স্থানীয় এক ব্যক্তি ওই জমিটি নিজের দাবি করে আদালতে মামলা করেছেন।

“বিষয়টি সহকারী কমিশনার (ভূমি) তদন্ত করছেন। আশা করছি তদন্তের প্রতিবেদন প্রাপ্তির পর বিষয়টি পরিষ্কার হয়ে যাবে।”

Share if you like

Filter By Topic

More News

২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত দেশ গড়তে বাংলাদেশকে বিশ্ব ব্যাংকের ৩ পরামর্শ

বাংলাদেশ প্রতিযোগিতা কমিশনে ডিম-মুরগিতে কারসাজির মামলার শুনানি

কলড্রপের টকটাইম ফেরত দেওয়া শুরু করেছে গ্রামীণফোন

জবাবদিহিতা ও সংস্কার নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত র‌্যাবের ওপর নিষেধাজ্ঞা বহাল থাকবে: মার্কিন রাষ্ট্রদূত

সহযোগী কোম্পানিতে বিনিয়োগে বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুমোদন নিতে হবে আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে

মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ: ৩ মাসের মধ্যে আবার বাড়ল রেপো সুদহার

বিদায় বেলায় একরাম খুন নিয়ে প্রশ্নে যা বললেন বেনজীর

‘স্বর্ণালংকার চুরির’ টাকায় দলবেঁধে কক্সবাজার ভ্রমণ, গ্রেপ্তার ১১

বঙ্গবন্ধুর খুনি শাহরিয়ার রশিদের জামাতার ৭ বছর জেল

উত্তরার হোটেলে ব্রিটিশ নাগরিকের লাশ